Martin tower

১৬ সেকেন্ডে ধুলো হয়ে গেল, ১৬ হাজার টন ইস্পাতের বিল্ডিং, কোথায় জানেন?

১৬ সেকেন্ডে ধ্বংস হয়ে গেল ১৬ হাজার টন ইস্পাতে নির্মিত ভবন। বেথলেহেম স্টিল সংস্থার( Bethlehem Steel company) তৈরি এই ভবনের নাম মার্টিন টাওয়ার ১৯৭২ সাল থেকে আমেরিকার পেনসিলভেনিয়াতে( Pennsylvania) ২১ তলা মার্টিন টাওয়ার ল্যান্ডমার্ক হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। সেই ভবনের এমন ভেঙে পড়া রূপ দেখে বিস্মিত বিশ্ব। সম্প্রতি মার্টিন টাওয়ার( Martin Tower)ধুলোয় মিশে যাওয়ার ভিডিও ভাইরাল হতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

জানা গিয়েছে, কোনও এক অজ্ঞাত কারণে বেথলেহেম স্টিল বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তারপরেও কেটে গিয়েছে ১২টা বছর। এতদিন ধরে মার্টিন টাওয়ার বন্ধ হয়ে পড়ে ছিল। বিল্ডিংটির বর্তমান মালিক ৩৩২ ফুট উঁচু এই ভবনটিকে আর্থিকভাবে লাভজনক করার অনেক চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু সেই চেষ্টা বিশেষ সফল না হওয়াতে শেষ পর্যন্ত তাঁকে মার্টিন টাওয়ার ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্তই নিতে হল। তাই রীতিমতো বিস্ফোরক জোগার করে ভবনটিকে ভেঙে ফেলা হল। ভবন ধ্বংসের সময় সেই দৃশ্য দেখার জন্য ঘটনাস্থলে তিল ধারনের জায়গা ছিল না। ভেঙে পড়ার মুহূর্তকে ক্যামেরাবন্দি করতে সকলেই ব্যস্ত। একটা ইতিহাসের অবসান হল মার্টিন টাওয়ার ধ্বংসের সঙ্গে সঙ্গে। এই ভিডিওই হয়তো পেনসিলভেনিয়ার পরবর্তী প্রজন্মকে মার্টিন টাওয়ারের কথা জানাবে। ভেঙে পড়ার সময় গোটা এলাকা ধুলো,  ধোঁয়ায় ঢেকে যায় কিছুক্ষণের জন্য।

 

ধাপে ধাপে ধ্বংস হয়েছে মার্টিন টাওয়ার। পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই ধ্বংস করা হয়েছিল ওই পুরনো ভবন, যাতে কোনওভাবেই এলাকার অন্যকোনও ভবনের বা বাড়ির ক্ষতি না হয়। এরফলে ৭২টি তলা ধীরে ধীরে গুঁড়িয়ে গিয়েছে। হেলে পড়েনি, একেবারে সোজাসুজি মাটিতে নেমে এসেছে ভবনের ধ্বংসাবশে। ধুলোর আকারে গড়িয়ে পড়েছে ১৬ হাজার টনের ইস্পাতের মার্টিন টাওয়ার। গোটা ভবন ধ্বংস করতে ব্যবহৃত হয়েছে ২১৯ কেজি বিস্ফোরক। এই বিস্ফোরকের এতটাই তেজ যে ৭২তলা ভবন ভেঙে মাটির সঙ্গে মিশে যেতে ১৬ সেকেন্ড সময় লেগেছে।

Post Author: bongmag

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।