Seal Sings Song

টুইঙ্কল টুইঙ্কল লিটল স্টার- ছোটদের প্রিয় গান গাইছে সিল, কেন জানেন?

গ্রে সিল গাইছে গান,শুনলেই মনে হবে ছেলে ভোলানো ছড়া গাইছেন কেউ। একেবারেই না, সত্যি সত্যিই গান গাইছে গ্রে সিল। স্কটল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অফ সেন্ট অ্যান্ড্রিউ-এর গবেষক শিক্ষকদের এমনটাই দাবি। শিক্ষকরা বলছেন, দিব্যি গান গাইছে ধূসর সিল, গবেষণায় নাকি এই গান গাওয়ার প্রমাণ মিলেছে। গানই বা বলি কেন, মানুষের ভাষার সবকিছুই সুন্দরভাবে নকল করতে পারে এই প্রাণী। তাই তো গ্রে সিল গাইছে টুইঙ্কল টুইঙ্কল।

ইতিমধ্যেই একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভালরকম ভাইরাল হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে প্রাণের সুখে গলা ছেড়ে সুর ভাঁজছে গ্রে সিল। কণ্ঠে তার ছোটদের অতি প্রিয় ছড়া টুইঙ্কল টুইঙ্কল। একই সঙ্গে বিভিন্ন রকম মনুষ্যকৃত আওয়াজও নকল করছে সিলের দল। নকল করাতে সিলের জুরি মেলা ভার তা একবার শুনলেই বুঝতে পারবেন। বিজ্ঞানীরা তো প্রথমে ধরতেই পারেননি এটি মানুষের গলার স্বর না মনুষ্যেতর কোনও প্রাণীর। তারপর ভিডিওটি দেখে তাঁদের চোখ তো কপালে উঠেছে। গ্রে সিল কিনা গাইছে গান, তাও আবার টুইঙ্কল টুইঙ্কল।



এই ভিডিও শোনার পর বিজ্ঞানীদের দাবি, সিল যে নিজেদের মধ্যে রীতিমতো সুর করে কথা বলে। পরস্পর পরস্পরের সঙ্গে যোগযোগ রাখে তা আগেই প্রমাণিত হয়েছে। কিন্তু মানুষের গলা নকল করছে গ্রে সিল এটা মানতেও এতদিন বেশ কষ্টই হত। কিন্তু কষ্ট হলেও সত্যিটা তো বদলে যেতে পারে না, তা ফের প্রমাণ হল। এই ভিডিওতে বন্দি হওয়া সিলদের সুর সম্পূর্ণ আলাদা ধরনের। এরপরেই গবেষণার কাজ আরও জোরদারভাবে শুরু হয়েছে। গবেষণার নেতৃত্বে রয়েছেন বিজ্ঞানী আমান্ডা স্ট্যান্সবুরি। তিনি বলেছেন, সিলরা যে মানুষের গলার স্বর নকল করতে পারে, তাতে কিন্তু লাভই হল। এমনিতেই পৃথিবীর সবথেকে উন্নততম প্রাণী মানুষ। তার শারীরিক সমস্যার কোনও শেষ নেই। একটির সমাধান সূত্র মেলে তো আর একটা জটিল রোগ হানা দেয়। এই যে গলার স্বরের নকল প্রসঙ্গ প্রকাশ্যে এল তাতে মানুষই লাভবান হবে ভবিষ্যতে। কেননা মানুষের গলায় কোনওরকম জটিলতা দেখা দিলে তা সারানোর জন্য আগে সিলের গলায় পরীক্ষা করলেই চলবে। তারপর গবেষণালব্ধ ফলেই সুস্থ হয়ে উঠবে মানুষ।

Post Author: bongmag

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।