Man proposed his girl friend

বান্ধবীকে ইমপ্রেস করতে স্কুভা ডাইভিংয়ে প্রোপোজ, ঝিনুকের খোল থেকে বেরিয়ে এল এনগেজমেন্ট রিং (দেখুন ভিডিও)

১০ বছরের সম্পর্ক। বন্ধুত্ব তেকে ধীরে ধীরে একদিন প্রেম জেম উঠল। কিন্তু এতদিনের সম্পর্ককে বিয়ের বাঁধনে বাঁধতে গেলে একটা হটকে সূচনা তো চাই। তেমনটাই করলেন ভার্জিনিয়ার তরুণ ইথান স্টুডানেক। পাঁচ বছর আগে ভঠর তিরিশের ইতানের মাথায় খেলে যায় অভিনব পরিকল্পনা। যদি সমুদ্র গর্ভে গিয়ে বান্ধবী মর্গ্যানকে বিয়ের জন্য প্রপোজ করা যায়, তবে কেমন হয়? সেখানেই নাহয় তার হাতে আঙটি পরিয়ে ভাবী বধূর সম্মান দেবে।



ভাবা তো হয়ে গেল, তবে উঠল বাই তো কটক যাই নয়। সেই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করতে লেগে গেল পাঁচটি বছর। তবে প্রপোজের আগে ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের সঙ্গে পরিকল্পনাটি শেয়ার করেছিলেন ইথান। বন্ধুরা শুনে দারুণ চমকেছে, তবে তাঁকে উৎসাহ দিতে একেবারেই ভোলেনি। বরং সঙ্গে থেকে বিষয়টি আরও মধুর করে তুলতে চেয়েছে। সেই মতোই গতবছর গরমে মর্গ্যান ও অন্যান্য বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে ইথান ওয়েস্ট ইন্ডিজে বেড়াতে চলে যান। সেখানেই ক্যারিবিয়ান সমুদ্রের স্কুভা ডাইভিংয়ের প্ল্যান হয়। আরও পড়ুন- ৬ বছর বয়সেই ছুঁয়ে ফেলল এভারেস্ট বেস ক্যাম্প, চেনেন নাকি এই খুদেকে?



ঠিক হয়েছিল এনগেজমেন্ট রিংও সঙ্গেই থাকবে। তবে হাতে নয়, ঝিনুকের মধ্যে। বান্ধবীর পাশাপাশি ডাইভিংয়ের সময় মাটি থেকে ঝিনুকটি কুড়িয়ে নিচ্ছেন ইথান, এমনটাই দেখানো হবে। তারপর ১০ বছরের বান্ধবীকে তিনি বিয়ের প্রস্তাব দেবেন। ততক্ষণে ইথানের হাতে খুলে গিয়েছে ঝিনুকের মুখ ভিতর থেকে উঁকি মারছে এনগেজমেন্ট রিং। ২৮ বছরের মর্গ্যান অনেকদিন ধরেই চাইছিলেন, ইথান এবার অন্তত তাঁকে প্রপোজ করুক। বেড়াতে এসে স্কুভা ডাইভিংয়ে এভাবে প্রপোজে তিনি অভিভূত হয়ে পড়েন। সঙ্গে সঙ্গেই মাথা নাড়িয়ে সম্মতি দেন। আনন্দের আতিশয্যে সেখানেই নিজেদের জড়িয়ে ধরেন। জল থেকে ভেসে ওটা পর্যন্ত তাঁরা অপেক্ষা করেননি। আরও পড়ুন-হাত ঘড়িতেই লিপ ইয়ার দেখুন, এমনটাও হয় জানেন কি?




তবে বন্ধুরা আশপাশেই ছিল, তাই এমন অভিনব মুহূর্তে লেন্সবন্দি হতে সময় নেয়নি।  এই ঘটনার পর এক বছর হতে চলল। সেদিন ক্যারিবিয়ান দ্বীপের বনে এলাকায় যে অভিনব ঘটনাটি ঘটেছিল, তা মনের মণিকোঠায় সযন্তে রেখেছেন ইথান ও মর্গ্যান। ইথান সংবাদ মাধ্যমকেও বলেছেন, “মাঝে মাঝেই মনে করি সেই দিনটাকে। মুহূর্তটাকে ছুঁতে ফের ফিরে যেতে ইচ্ছে করে ওই জায়গায়।” সেই ২০০৮-এ প্রথম দেখা। দেখতে দেখতে ১১টা বসন্ত কেটে গিয়েছে। বন্ধুত্ব থেকে প্রেম হয়েছে, দুজন দুজনকে ভরসা করতে শিখেছে। এবারও তো প্রেমকে পরিণতি দেওয়ার পালা। আসছে এপ্রিলে বিউগল বাজবে, চার্চের নিস্তব্ধতা ভেঙে বেহালায় উঠবে প্রেমের সুর। ঈশ্বরকে শপথ করে পরস্পরকে চিরদিনের জন্য আপন করে নেবেন ইথান ও মর্গ্যান।

Post Author: bongmag

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।