Dal Lake

Kashmir: কাশ্মীর! এক বিভাজিত আখ্যান (চতুর্থ পর্ব)

কাশ্মীরে (Kashmir) ১৯৯০ এর পর বহু জঙ্গি আত্মসমর্পণ করেছিল। তাদের সরকারি রি-হ্যাবে রেখে তারপর একটা শংসাপত্র দিয়ে ছাড়া হয়৷ যেখানে লেখা থাকে এঁরা আত্মসমর্পণ করেছিলেন। বাড়ির দেওয়ালে সেই শংসাপত্র ল্যামিনেট করে টাঙিয়ে রাখা হয়। কখনও কখনও সেনারা এসে দেখে যায়।

Indian army truck

Kashmir: কাশ্মীর! এক বিভাজিত আখ্যান (তৃতীয় পর্ব)

একটা দুটো উদাহরণ দিলে ব্যাপারটা বুঝতে সুবিধে হবে। কাশ্মীরে (Kashmir) বুরহান ওয়ানি যতটা সমর্থন পেয়েছিল,

Buddhadeb Guha

অন্য ‘বিন্যাস’-এর লেখক বুদ্ধদেব গুহ

[…]

Kazi Nazrul Islam

Kazi Nazrul Islam: ‘শত কবিতায় নজরুল’, বিদ্রোহী কবিকে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রদ্ধার্ঘ্য

এই অস্থির সময়ে আমাদের মনে আশার আলো জাগায় সেই একমেবদ্বিতীয়ম কাজী নজরুল ইসলাম (Kazi Nazrul Islam) ও তাঁর প্রতিবাদী  চেতনা৷ 

kashmir

Kashmir: কাশ্মীর! এক বিভাজিত আখ্যান (দ্বিতীয় পর্ব)

“আচ্ছা বাইরে সবাই কি বলছে কাশ্মীর (Kashmir) নিয়ে? কেউ আমাদের কথা ভাবছে?” প্রথম বিড়ম্বনায় ফেলল বন্ধুর ১৫ বছর বয়সী তুতো ভাই। কীভাবে বলি কি বলছে বাইরের সবাই! কীভাবে বলি কিছু মানুষ ৫ অগাস্ট কতোটা পৈশাচিক উন্মাদনায় মেতে উঠেছিল।

Kashmir

Kashmir: কাশ্মীর! এক বিভাজিত আখ্যান (প্রথম পর্ব)

কাশ্মীর! (Kashmir) প্লেনের চাকা রানওয়ে ছুঁয়েছে, পাইলট তাঁর স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই মিনিট তিনেক পরে সহযাত্রীদের শ্রীনগরে স্বাগত জানালেন। চিরাচরিত ঘোষণাতে কর্ণপাত না করে সবাই সিটবেল্ট খুলে জিনিসপত্র গুছিয়ে নিতে ব্যস্ত।

bongmag.com

স্রোতের গন্ধ

মনসুর প্রতিদিনের মত আজও দুপুর থেকে ছিপটা ফেলে বসে আছে। আসার পর একটা ছোট সাইজের মহাশোল উঠেছিল। তারপর সব চুপচাপ। সূর্যের আলো আবছা হয়ে এসেছে। এক্ষুনি ঝুপ করে অন্ধকার নেমে পড়বে।

Shankha Ghosh

Shankha Ghosh:“আমার বলে রইল শুধু, বুকের ভিতর মস্ত ধু ধু”

“তোমার স্বপ্নে কোনো বাস্তব নেই, বাস্তবে নেই কোনো স্বপ্ন।” করোনা বড় কঠিন বাস্তব। বাংলা কবিতার অশৌচকাল শুরু হল। চলে গেলেন শঙ্খ ঘোষ (Shankha Ghosh )।

Tribeni

Tribeni Jafar Khan Ghazi Mosque: ত্রিবেণী ও শতাব্দী প্রাচীন জাফর খাঁ গাজির মসজিদ

Tribeni Jafar Khan Ghazi Mosque: ত্রিবেণীর (Tribeni) জীবন তরঙ্গ বড়ই বিচিত্র। কান পাতলে সেই সুখ দুঃখের অংশীদার আপনিও হতে পারেন। জাফর খাঁ গাজির মসজিদকে পাশে রেখে (Zafar Khan Ghazi Mosque) দিনভর তার জলে দার টেনে ভেসে বেড়ায় ডিঙি নৌকো, যাত্রী পারাপারের লঞ্চ।

Saptagram Port

Saptagram Port: অতীতের সপ্তগ্রাম ও সৈয়দ জামালুদ্দিন মসজিদ

ইরান আরব তুর্কিস্তান থেকে তখন বণিকরা এই নদীপথ ধরেই সপ্তগ্রাম (Saptagram Port) বন্দরে বাণিজ্য করতে আসছে। ততদিনে বঙ্গদেশের গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যকেন্দ্র হিসেবে সপ্তগ্রাম (Saptagram Port) বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে।