5D Effects skywalk

কাচের মেঝে ফেটে চৌচির, তবুও সাতশো ফুটের সেতুতে ফুল পাখি দেখতে মানুষের ঢল__ ব্যাপারটা কী?

প্রযুক্তি, হ্যাঁ বর্তমানে এই প্রযুক্তির উত্তরণই শেষ কথা। প্রযুক্তি যত ভোল পাল্টে নতুন রূপ নেবে তত সভ্যতা এগিয়ে চলবে। ঘটছেও তাই, প্রতিদিন কিছু না কিছু আবিষ্কার হয়েই চলেছে। হাইটেক সভ্যতাকে আপন করে নিয়েছে গ্যাজেটপ্রিয় মানুষ। সে যাইহোক প্রযুক্তি শুধু আমার আপনার ঘরে নিত্যনতুন গ্যাজেটে পূর্ণ করে দেয়নি। আপনার প্রতিদিনের চোখে দেখা শহরেও এসেছে নানা বদল। আজ বলব এক সেতুর গল্প। এই সেতুতে একসঙ্গে ৪০০ লোক চলাচল করতে পারে।কিন্তু সেতুতে পা রাখলেই মনে হবে হৃদপিণ্ডটা হাতে চলে এল। কিন্তু কেন?


সেতুটি তৈরি হয়েছে চিন। এমনিতেই প্রযুক্তিকে হাতিয়ার করে তরতরিয়ে এগিয়ে চলেছে চিন। সেখানে নিত্যনতুন প্রযুক্তির সুফল ভোগ করছে মানুষ। এবার পথচারীদের চমকে দিতে 5-D প্রযুক্তির স্কাই ওয়াক তৈরি করে ফেলল বেজিং। এটি দক্ষিণ পশ্চিম চিনের গুইঝাউ প্রদেশে। সাতশো ফুট লম্বা ও ও সাড়ে সাত ফুট চড়াও সেতুতে একসঙ্গে ৪০০ লোক হেঁটে চলে বেড়াতে পারে। মাটি থেকে ৮০ মিটার বা ২৬০ ফুট উঁচুতে রয়েছে এই সেতু। যা প্রায় ২০ তলা বাড়ির সমান।


সেতুতে হাঁটতে গেলেই রোমাঞ্চ লাগবে। সেতুর মেঝে পুরোটাই কাচের তৈরি। যেই না পা দেবেন দেখবেন মেঝেতে ফুটে উঠল কারিকুরি, দেখে মনে হতেই পারে পায়ের চাপে কাচ ভেঙে গিয়েছে। এখনই হুড়মুড়িয়ে নিচে পড়লেন বলে। কিন্তু ভয় পাবেন না আপনি মোটেও নিচে পড়ে যাচ্ছেন না। ওটা ৫ডি প্রযুক্তির কামাল। সেতুর কাচে ফাটল আসলে প্রযুক্তির খেল, প্রকৃত ফাটল নয়। শুধু তাইই-নয়, সেতুর মেঝেতে চলতে চলতেই নজরে আসবে ফুল পাতা, ভেসে বেড়াচ্ছে মাছ। মনটা ভালো হয়ে যাবে স্বচ্ছ কাচে রংবেরঙের ফুল ও রঙীন মাছ মনকে আনন্দ দেবে।

এমন সেতুর কল্পনা করে নিশ্চই হেঁটেচলে বেড়াতে ইচ্ছে করছে?  তাহলে তো আপনাকে চিনে বেড়াতে যেতে হয়। সেখানেই তো রয়েছে এই আশ্চর্য সেতু। পায়ে পায়ে যা আপনাকে বিষ্ময় ও আতঙ্কের চরম সীমায় পৌঁছে দেবে। ভিডিওটি দেখলে হলফ করে বলতে পারি চোখ সরাতে পারবেন না।

Post Author: bongmag

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।